Main Menu

গ্রিসে উৎসাহ ও উদ্দীপনায় ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালিত

যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে প্রাচীন সভ্যতার পীঠস্থান গ্রিসে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ দিবস পালিত হয়েছে। সকালে দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণের উপস্থিতিতে গ্রিসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জনাব আসুদ আহ্‌মদ দূতাবাস প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা আনুষ্ঠানিকভাবে উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিবসটির সূচনা করেন । জাতীয় পতাকা উত্তোলনের পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধে শহিদদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত ও বাংলাদেশের শান্তি ও উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। রাষ্ট্রদূত জনাব আসুদ আহ্‌মদ এবং দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

গ্রিসসহ সারা বিশ্বে চলমান করোনা মহামারী পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে দুই বছর পর এ বছর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষ্যে প্রবাসীদের সরাসরি উপস্থিতিতে আয়োজন করা হয় ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ ২০২২। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে কোরান তেলাওয়াতের মাধ্যমে বঙ্গ বন্ধু ও তাঁর পরিবারের শহীদদের এটার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিস এবং গ্রিস আওয়ামী লীগ -এর নের্তৃবৃন্দসহ প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, আঞ্চলিক ও ব্যবসায়ী সংগঠনের প্রতিনিধি, দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সর্বস্তরের প্রবাসী বাংলাদেশিরা অংশগ্রহণ করেন।

প্রধান মন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির বাণী পাঠ করেন যথাক্রমে দূতাবাসের সচিব (শ্রম) বিশ্বজিৎ কুমার পাল ও দুতলায় প্রধান মহম্মদ খালেদ।

গ্রিসে নিযুক্ত মান্যবর রাষ্ট্রদূত আসুদ আহমেদের সভাপতিত্বে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ বাংলাদেশ থেকে অতিথি হিসেবে প্রধান অতিথির আসন গ্রহণ করেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব শামসুল হক টুকু (এমপি ), বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য, সাবেক পুলিশের আইজিপি জনাব নূর মোহাম্মদ (এমপি )ও বাংলাদেশ পাসপোর্ট অধিদপ্তরের শীর্ষ স্থানীয় কর্ম-কর্তা বৃন্দ। দুতলায় প্রধান মোহম্মদ খালেদের সঞ্চালনায় বক্তাগণ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক বক্তৃতার গুরুত্ব ও বৈশ্বিক তাৎপর্য তুলে ধরে বলেন, বঙ্গবন্ধু তার বক্তৃতার মাধ্যমে যুগোত্তীর্ণ নেতায় পরিণত হয়েছিলেন। তার আহবান শুধু বাঙালিদের নয়, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মেহনতি, নির্যাতিত মানুষের যৌক্তিক দাবি আদায়ের অনুপ্রেরণা ও শক্তিতে পরিণত হয়েছে।

প্রবাসী বাংলাদেশিদের অংশগ্রহণে মুক্ত আলোচনায় বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রিস, গ্রিস আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও আঞ্চলিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন ।
সম্মানিত ওঠি ও উপস্থিত প্রবাসীদের সামনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ প্রদর্শন করা হয়। এছাড়া, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ভাষণ ইউনেস্কো মেমোরী অব দ্যা ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারে অন্তর্ভুক্তি উপলক্ষ্যে তৈরিকৃত একটি প্রামাণ্যচিত্রও প্রদর্শন করা হয়। আলোচনায় বক্তাগণ তাদের বক্তব্যে বঙ্গবন্ধুর প্রতি তাদের ভালোবাসা এবং বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের গুরুত্ব তুলে ধরেন।

বাংলাদেশ থেকে রত অতিথি গণ তাঁদের বক্তব্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক নেতৃত্বের কথা স্মরণ করে বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার দৃপ্ত পদক্ষেপে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, জাতির পিতার ভাষণের ইউনেস্কো কর্তৃক পৃথিবীর গুরুত্বপূর্র্ণ দালিলিক ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি আমাদের জাতির জন্য এক গর্বের বিষয়। তিনি নতুন প্রজন্মের মধ্যে জাতির পিতার আদর্শ ছড়িয়ে দেবার আহবান জানান।






Related News

Comments are Closed