প্রচ্ছদ

ভিনগ্রহীদের আড্ডা বসে এসব বাড়িতে!

Eurobanglanews24.com

সবই যেন আজব। ঘরবাড়ি আছে, কিন্তু এমন সব নকশা যা আপনি আগে কখনো দেখেননি। এক ঝলকে দেখলে বিশ্বাসই হবে না আপনি পৃথিবীতে আছেন। ধরুন, কোনো একটি বাড়ি গোলাকার, আবার কোনটি চৌকোর মতো। সবই যেন ভৌতিক। কিন্তু, এই বাড়িগুলোর একটা বিশেষত্ব হলো সবগুলোই দেখতে কাল্পনিক এলিয়েনদের যানের মতো।

 

ছোটবেলায় এলিয়েনদের গল্প শোনা, বা কল্পবিজ্ঞানের গল্পে এলিয়েন বা ভিনগ্রহী প্রাণীদের মহাকাশযানের যে বর্ণনা শোনা যায়, এখানকার বাড়িগুলো ঠিক তেমনই। কথা হচ্ছে তাইওয়ানের ওয়ানলি শহরের। যেখানে জনমানুষ নেই। কিন্তু, রয়েছে একটা গা ছমছমে ভাব। আস্ত একটা শহর যেন ভিনগ্রহীদের আড্ডা!

 

 

অত্যাধিক সুন্দর ডিজাইনের বাড়িগুলোতে কোনো মানুষ নেই

 

তাইওয়ানের এই শহরটিতে মূলত দু’ধরনের বাড়ি আছে। একটি ডিম্বাকৃতি ইউএফও-এর মতো। অপরটা, খানিকটা চৌকোর মতো। জানালা-দরজা সবই যেন আজব। দূর থেকে দেখলে কাল্পনিক ইউএফও মনে হতে বাধ্য।

 

 

 

খুব কম খরচে বাড়িগুলো তৈরি হলেও দেখতে অতীব সুন্দর। মজার কথা হল, এই বাড়িগুলোর ভিতরে সমস্ত আধুনিক সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। এর মধ্যে চাইলেই বেশ কিছু মানুষ বাস করতে পারেন। শোনা যায়, ফিনল্যান্ডের স্থপতি ম্যাট সুরোনেন এই শহরটির নকশা করেছিলেন।

 

 

অনেকটা প্রজাপতির ডানার মত এই বাড়িটি

 

কিন্তু, সত্তরের দশকেই শহরটি পরিত্যক্ত হয়ে যায়। এই শহরে কেউ বসবাস করেন না আর। কিন্তু, কেন শহর থেকে হঠাৎ বাসিন্দারা উধাও হয়ে গেলেন তা নিয়ে কোনো তথ্য নেই। কেউ বলেন, এই শহরটিকে সাজানো হচ্ছিল সরকারি উদ্যোগেই। কিন্তু, হঠাৎ মন্দার ফলে বিশ বাঁও জলে পড়ে সেই প্রকল্প।

 

আশেপাশের শহরগুলোর জীবনযাত্রার মান হঠাৎ উন্নত হয়ে যাওয়ায়, শহরের বাসিন্দারা এলাকা ছেড়ে চলে যান। আবার কেউ বলে সতের দশকে হঠাৎই শহরে দুর্ঘটনা আর আত্মহত্যার পরিমাণ রহস্যজনকভাবে বেড়ে যায়।

 

 

এতো সুন্দর এলাকাটি লোকশূন্য

 

তারপরই শহরটি পরিণত হয় ভৌতিক শহরে। বাধ্য হয়েই শহর ছাড়েন স্থানীয়রা। কারণ যাই হোক, সেই সতের দশক থেকেই ভৌতিক শহর হিসেবেই থেকে গিয়েছে। অন্য প্রাণীর দেখা মিললেও মানুষের সাক্ষাৎ পাওয়া যায় না এই শহরে।

 

আর্কাইভ

আগষ্ট ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১